লিপস্টিক ছড়িয়ে পড়া এড়াতে করণীয়

লিপস্টিক একজন নারীর একান্ত প্রসাধনী। টকটকে লাল থেকে ফিকে গোলাপী, গাঢ় মেরুন থেকে হালকা বাদামি, কমলা ইত্যাদি সবগুলো রঙের লিপস্টিকই নারীর ব্যক্তিত্বের বহিঃপ্রকাশ। সাজগোজ হোক অথবা নিজেকে উপস্থাপন করাই হোক, কোনোটাতেই লিপস্টিকের বিকল্প নেই। কিন্তু প্রচণ্ড গরমে বা বর্ষায় এই সৌন্দর্য লেপ্টে গিয়ে সাজের অনেকটাই নষ্ট হয়ে যায়। কোথাও দাওয়াতে গেলে পোলাওয়ের তেল কিংবা রোস্টের কামড়েও লিপস্টিক ছড়িয়ে যায় অনেকখানি। গাঢ় কোনো রঙের লিপস্টিক এভাবে ছড়িয়ে গেলে কেমন দেখাতে পারে ভেবেই আপনার গা শিউরে ওঠাটাই স্বাভাবিক।  যে কোনো পরিস্থিতে যেন আপনার সাধের লিপস্টিক ছড়িয়ে না পড়ে, তা নিয়েই আমাদের আজকের এই  আয়োজন।

১. লিপ লাইনার ব্যবহার করুন

অনেকেই যে ভুলটা করে থাকেন তা হলো লিপ লাইনার ব্যবহার না করা। লিপ লাইনার কিন্তু লিপস্টিকের একটা বাড়তি গার্ড হিসাবে কাজ করে যা আপনার লিপস্টিককে ছড়িয়ে পড়া থেকে রক্ষা করে। অনেকেই আছেন যারা লিপস্টিকের সাথে মানানসই লিপ লাইনার বেছে নিতে পারেন না বলে লিপ লাইনার এড়িয়ে চলেন। কিন্তু সত্যিকার অর্থে লিপ লাইনার বাছাই করা খুব কঠিন কিছু না। আপনি যদি ঠোঁটের আঁকার নিয়ে সন্তুষ্ট থাকেন তাহলে একই রঙের লিপ লাইনার বাছাই করতে পারেন। যদি ঠোঁট একটু পুরু দেখাতে চান তাহলে এক শেড হালকা এবং চিকন দেখাতে চাইলে তার ঠিক এক শেড গাঢ় লিপ লাইনার বেছে নিন। কোনো ভাবেই আপনি যদি সিদ্ধান্ত না নিতে পারেন সেই ক্ষেত্রে আপনার জন্য থাকছে ইনভিসিবল লিপ লাইনার যা ঠোঁটে লাগানোর পর রঙ দেখায় না ফলে আপনি নিশ্চিন্তে যে কোনো লিপস্টিকের সাথে বুলিয়ে নিতে পারেন এই লাইনারটি। এই ধরনের লিপ লাইনার ৬ ডলার থেকে দাম শুরু হয়ে থাকে। সাধ এবং সাধ্যের সমন্বয়ে আপনার মেকআপ কিট ব্যাগে জায়গা করে দিন একটি ইনভিজিবল লিপ লাইনারের।

বেছে নিন আপনার পছন্দের রঙটি; Source: Amazon.in

২. ঠোঁট আর্দ্র রাখুন

ঠোঁটে লিপস্টিক লাগানোর আগে পর্যাপ্ত আর্দ্র করে নিন। ভেসলিন বা যে কোনো পছন্দের লিপবাম লাগিয়ে নিন। ভেসলিন বা লিপবামের সাথে এক চিমটি চিনি নিয়ে ঠোঁটে লাগিয়ে রাখুন। পাঁচ মিনিট পরে ভেজা তোয়ালে বা নরম সুতি কাপড় দিয়ে আলতো করে ঠোঁটে ঘষুন। এতে করে ঠোঁটের মরা কোষগুলো উঠে আসবে। তারপর ঠোঁটে আবার ভেসলিন বা পছন্দের ময়েশ্চারাইজার লাগিয়ে কিছুক্ষণ পর বুলিয়ে নিন পছন্দের লিপস্টিক। ঠোঁট আর্দ্র থাকায় এটি বাড়তি কোনো আর্দ্রতা শোষণ করে না ফলে লিপস্টিক ছড়িয়ে পড়ে না।

লিপবাম ঠোঁটকে আর্দ্র রাখবে; Source: walgreens

৩. ভালো মানের লিপস্টিক বাছাই করুন

বাজারে অনেক ভালো মানের লিপস্টিক পাওয়া যায়। সেগুলোর দাম তুলনামূলক বেশি হলেও ব্যবহারেই আপনি এর উপযোগিতা বুঝতে পারবেন। লিপস্টিকের গায়ে লং লাস্টিং বা ওয়াটারপ্রুফ লেখা দেখে কিনুন।

লিপস্টিকের গায়ে লং লাস্টিং লিখা দেখে কিনুন; source: JulliaSalure

এই ধরনের লিপস্টিক বেশির ভাগই ম্যাট হয়ে থাকে। তবে এই ম্যাট লিপস্টিক কখনই আপনার ঠোঁটকে শুষ্ক করে দিবে না বা এর জন্য আপনার ঠোঁটের চামড়ায় কোনো অস্বস্তিকর টান অনুভূত হবে না। বাজারে প্রায় ৮০০ টাকা থেকে শুরু করে বিভিন্ন দামে অনেক ভালো লং লাস্টিং লিপস্টিক পাওয়া যায়।

ভালো মানের লিপস্টিক বেছে নিন; Source: Lippico

৪. টিস্যু পেপার ব্যবহার করুন

প্রায়ই যে জিনিসটা আমরা লক্ষ্য করি না তা হলো, লিপস্টিক দাঁতে লেগে যাওয়া বা নিচের ঠোঁটের নিম্নাংশে ছড়িয়ে যাওয়া। এই ধরনের পরিস্থিতি এড়াতে লিপস্টিক লাগানোর পর একটি টিস্যু নিয়ে দুই ঠোঁটের মাঝখানে আলতো করে রেখে চেপে ধরুন। বাড়তি লিপস্টিক উঠে আসবে এবং লিপস্টিক ছড়াবে না। এছাড়া দাঁতে লেগে যাওয়া এড়াতে মুখে তর্জনি আঙ্গুল ঢুকিয়ে ঠোঁট দিয়ে চেপে আঙ্গুল বের করে আনুন। ঠোঁটের ভিতরের অংশে যদি কোনো লিপস্টিক লেগে থাকে তা আঙুলের চারপাশে লেগে বেরিয়ে আসবে।

৫. হাইলাইটার

লিপস্টিক লাগানোর আগে হাইলাইটার দিয়ে ঠোঁটের চারপাশে বাড়তি উজ্জ্বলতা দিন। এটি উজ্জ্বলতা বাড়ানোর পাশাপাশি ঠোঁটের চারপাশ শুষ্ক রাখবে। ফলে লিপস্টিক ছড়িয়ে পড়বে না।

হাইলাইটার লাগিয়ে নিন; Source: ELF Cosmetics

ঠোঁটের জন্য আলাদা করে কোনো হাইলাইটার কেনার প্রয়োজন নেই। মেকআপ করার জন্য গালের উঁচু হাড়ে যে হাইলাইটার ব্যবহার করা হয় সেটিই ফ্যান ব্রাশের সাহায্যে ঠোঁটের চারপাশে ব্রাশ করে নিতে পারেন।

ফ্যান ব্রাশ; source: Sephora UAE

৬. ম্যাট লিপস্টিক বেছে নেয়া

আপনি যদি গ্লসি লিপস্টিক পছন্দ করে থাকেন তাহলে একটি ছোট্ট মন খারাপ করা সত্য হচ্ছে, গ্লস লিপস্টিক ছড়িয়ে পড়া থেকে বাঁচা অনেক কঠিন। তাই পরামর্শ থাকছে, ম্যাট লিপস্টিক ব্যবহার করার। আপনার কাছে ম্যাট লিপস্টিক না থাকলে গ্লস লিপস্টিক লাগানোর পর সেটি টিস্যু চেপে একবার হালকা করে নিন। তারপর আবার আরেকবার লিপস্টিক লাগিয়ে এর উপর একটি টিস্যু হাতের সাহায্যে চেপে লাগিয়ে দিন। হাতের তালুতে পাউডার নিয়ে টিস্যুর উপর দিয়েই ঠোঁটে লাগান। আস্তে আস্তে গ্লস লিপস্টিকটি ম্যাটে পরিণত হবে।

ঠোঁটের সাজের সাথে আপোষ করা সত্যি কঠিন। যারা খুব সাধারণ এবং প্রাকৃতিক সাজে থাকতে ভালোবাসেন তাদের ঠোঁটেও হালকা রঙের লিপস্টিক শোভা পেতে দেখা যায়। বলাই যায়, বেশির ভাগ নারীরই প্রথম এবং প্রধান পছন্দ হলো লিপস্টিক। সুতরাং   মেনে চলুন উপরোক্ত নিয়মগুলো এবং নিশ্চিন্ত থাকুক আপনার ঠোঁট!

ফিচার ইমেজ সোর্স – bloglovin

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

This site uses Akismet to reduce spam. Learn how your comment data is processed.